‘আমি অধিনায়কত্বের জন্য খেলি না’

নিউজ ইভেন্ট ২৪ ডটকম/আর

০৫ জুলাই ২০১৭,বুধবার, ১৬:৩৬

বয়সটা ৩৩ পেরিয়ে গেছে। চারদিকে এ কারণেই ফিসফিসানি শুরু হয়েছে। মাশরাফি বিন মুর্তজার খেলা চালিয়ে যাওয়া উচিৎ না এখানেই দাড়ি দেয়া উচিৎ? এক পক্ষ মনে করছেন, ২০১৯ বিশ্বকাপ অবধি মাশরাফি চালিয়ে যেতে পারবেন না। আবার আরেক পক্ষের দাবি, যতদিন চোটমুক্ত থাকবেন তিনি ততদিন খেলে যাবেন।

মাশরাফি ২০১৪ সালে নতুন করে দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে বাংলাদেশ ক্রিকেটের সোনালী অধ্যায়ে ঢুকে পড়েছে।২০১৫ বিশ্বকাপে বাংলাদেশ কোয়ার্টার ফাইনালে খেলেছে। মাশরাফির নেতৃত্বে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমি ফাইনাল খেলেছে বাংলাদেশ। নিঃসন্দেহে বাংলাদেশের সর্বকালের সেরা অধিনায়ক মাশরাফি। ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রধান আকরাম খান মনে করেন, বাংলাদেশের জীবন্ত কিংবদন্তি মাশরাফি। তাঁর অবসরের সিদ্ধান্ত তাকেই নিতে দেওয়া উচিৎ।

মাশরাফির বোলিংয়ে আগের মতো গতি না থাকলেও খারাপ করছেন না। নেতৃত্ব দিয়ে দলকে বিনি সুতার মালার মতো গেঁথে রেখেছেন। সেই মাশরাফি বলছেন, পারফরম্যান্স ঠিক থাকলে তিনি খেলে যেতে চান, ‘পারফরম্যান্স ঠিক থাকলে আমি খেলে যাব। কারণ খেলাটা এখনো উপভোগ করছি। আমি এখন যেমন খেলছি, তাতে উপভোগ না করার কোনো কারণ দেখছি না।’

মাশরাফি সবসময়ই দলের জন্য নিবেদিত প্রাণ। সেটা একজন সাধারণ খেলোয়াড় হিসেবেও। তাই অধিনায়কত্ব থাকা না থাকা নিয়ে মাশরাফি অতটা ভাবেন না, ‘আমি তো বিসিবির কাছ থেকে অধিনায়কত্ব চেয়ে নিইনি, বিসিবিই আমাকে দায়িত্ব দিয়েছে। এখন বিসিবি যদি মনে করে দায়িত্বটা অন্য কাউকে দেবে তো দিতেই পারে। আমি অধিনায়কত্বের জন্য খেলি না। আমি খেলোয়াড়, সে জন্যই খেলি।’

বিশ্বকাপ খেলা নিয়ে মাশরাফির ভাষ্য, ‘২০১৯ বিশ্বকাপের কথা বললে এখানে ফিটনেসটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। ফর্মও ভালো থাকতে হবে। এ দুটো ঠিক থাকলে ২০১৯ বিশ্বকাপ আমি কেন খেলতে চাইব না! সব ঠিক থাকলে অবশ্যই আমার তত দিন খেলা চালিয়ে যাওয়ার ইচ্ছা আছে।’

 

 


প্রতিদিনের খবরগুলো ফেসবুকে পেতে নিচের লাইক অপশনে ক্লিক করুন-

Logo

সম্পাদক: পল্লব মুনতাকা। জ্যাকম্যান, মেডওয়ে, ইউএসএ
ইমেইল: mail.newsevent24@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | newsevent24 2017