সন্তানের প্রাণ বাঁচাতে পাহাড়ি পথ ছুটে চলেছেন মা আলেয়া

নিউজ ইভেন্ট ২৪ ডটকম/আর

১৮ জুন ২০১৭,রবিবার, ০০:০১

রাঙ্গামাটি-চট্টগ্রাম সড়কের নিশ্চিহ্ন হয়ে যাওয়া শালবাগানের ধেপ্পাছড়ির পাহাড়ের ধ্বংস্তূপ। একসপ্তাহ আগে যেখানে যানবাহন চলতো এখন তা গিরিখাদ। এ গিরিখাদ বেয়ে অসুস্থ শিশু সন্তান জিসানের জীবন বাঁচাতে পাহাড়ি পথ হেঁটে ছুটে চলেছেন মা আলেয়া বেগম। গন্তব্য চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল। সাথে রয়েছেন স্বামী বজলুর রহমান আর স্বজন। শিশুর এক হাতে স্যালাইন আর মুখে অক্সিজেন মাস্ক। সিলিন্ডার হাতে নিয়ে ছুটেছেন হন্যে হয়ে।

আজ শনিবার বিকেলে এ অবস্থা দেখে ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধারকর্মীরা সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন। ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা সুমিত চাকমা শিশুকে কোলে নিয়ে এবং অন্য সদস্যরা অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে ধ্বংসস্তূপের বিশাল এই পথ এগিয়ে দেন।

জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে মায়ের চোখের অস্ত্রু আর বাবার মুখে শঙ্কাসহ শিশু জিসানকে নিয়ে ছুটে চলেছেন তারা। আশা এতটুকুই- কয়েক মাইল পথ পায়ে হেটে হাসপাতালে যেতে পারলে হয়তো তাদের আদারের সন্তান বেঁচে যাবে।


গত ১৩ জুন প্রবল বর্ষণে পাহাড় ধসে লোকনাথ মন্দির এলাকার পেছনে পশ্চিম মুসলিম পাড়ার বাসিন্দা আলেয়া ও বজলুর বাড়িতে পাহাড় ধসে মাটি চাপা পড়েন। মা আলেয়া আর ওই শিশুটিকে উদ্ধার করে রাঙ্গামাটি হাসপাতালে আনা হয়। রাঙ্গামাটি সদর হাসপাতালে পাঁচ দিন চিকিৎসার পর অবস্থার উন্নতি না হলে শিশু জিসানের জীবন বাঁচাতে মা আর বাবাকে ছুটে যেতে হয় চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের দিকে।


গত পাঁচ দিন রাঙ্গামাটি চট্টগ্রাম সড়ক বিচ্ছিন্ন থাকায় শিশু জিসানের মতো আরো অনেককেই চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম যেতে হয়েছে এভাবেই। রাঙ্গামাটি কাপ্তাইয়ে পানি পথে চট্টগ্রাম যাওয়ার সুযোগ থাকলেও অনেক বেশি সময় লাগবে এ আশঙ্কায় দুঃসহ কষ্ট সয়েও পাহাড়ি উঁচু-নিচু পথ পায়ে হেঁটে যাতায়াত করছেন অনেকেই।


শুধু রোগী নয়, জরুরি প্রয়োজনেও এই পথ পাড়ি দিতে হচ্ছে। অনেকে মালামাল নিয়েও যাতায়াত করছেন।


রাঙ্গামাটি চট্টগ্রাম সড়ক বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ার সাথে সাথে রাঙ্গামাটিতে পণ্য সরবরাহ বন্ধ হয়ে গেছে। ওষুধের দোকানে গাড়ি আসতে না পারায় ওষুধ সরবরাহ বন্ধ। পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে কোনো পর্যটক নেই। কুরিয়ার সার্ভিস ও ডাক বিভাগের কার্যক্রম বন্ধ হয়ে গেছে। রাঙ্গামাটির অনেক বেকারি ক্রেতাশূণ্য।


রাঙ্গামাটির মৌসুমী কৃষি পণ্য আনারাস, কাঁঠাল, আম পরিবহণের অভাবে পঁচে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।


সেনাবাহিনী এবং সড়ক ও জনপথ বিভাগ চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটি সড়ক চালুর জন্য পুরোদমে কাজ করে যাচ্ছে। সড়ক যোগাযোগ আবার স্থাপন হলে এই সঙ্কট কেটে যাবে। তবে আগামী এক মাসেরও বেশি সময় এই সরবরাহ সঙ্কট থেকে যাবে বলে আশঙ্কা সাধারণ মানুষের।

 

 


প্রতিদিনের খবরগুলো ফেসবুকে পেতে নিচের লাইক অপশনে ক্লিক করুন-

Logo

সম্পাদক: পল্লব মুনতাকা। জ্যাকম্যান, মেডওয়ে, ইউএসএ
ইমেইল: mail.newsevent24@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | newsevent24 2017